আজ সৈয়দ আহমদ উল্লাহর (ক.) ১১০তম বার্ষিক ওরশ

    0
    1

    রাউজানটাইমস ২৪ ডেম্ক :-

    ভক্তঅনুরক্তরা আসছেন syedahmadullahshah2দেশবিদেশের নানা স্থান থেকে। সাথে সবুজ পতাকা ও ব্যানারে তরিকতের বিভিন্ন বাণী, আল্লাহ, রাসুল (.) ও মাইজভাণ্ডারী তরিকতের স্লোগান।

    আজ ১০ মাঘ। গাউছুল আজম মাইজভাণ্ডারী হযরত মাওলানা শাহসুফি সৈয়দ আহমদ উল্লাহর (.) ১১০তম বার্ষিক ওরশ শরীফ। ওরশের আনুষ্ঠানিকতা গত বুধবার থেকে শুরু হয়েছে। এ উপলক্ষে কয়েকদিন আগে থেকে মাইজভাণ্ডার দরবারে ভক্তরা আসতে শুরু করেছেন।

    গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় সৈয়দ আহমদ উল্লাহ মাইজভাণ্ডারীর (.) মাজার শরীফে গোসল ও গিলাফ চড়ান গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিলের সাজ্জাদানশীন হযরত মাওলানা শাহসুফি সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভাণ্ডারী (মজিআ)। এসময় উপস্থিত ছিলেন নায়েবে সাজ্জাদানশীন সৈয়দ ইরফানুল হক মাইজভাণ্ডারী, ব্যবসায়ী সাইদুল হক খান, ক্যাপটেন সৈয়দ সোহেল হাসনাত, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ ফজলুল কাদের, আনজুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউছে মাইজভাণ্ডারী শাহ এমদাদীয়া খেদমত কমিটির মহাসচিব সৈয়দ আবু তালেব, সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন, অধ্যাপক মেজবাহ উদ্দিন শৈবাল, মাস্টার মো. আলমগীর, কামাল উদ্দিন, সোহেল প্রমুখ। অপরদিকে বিকাল ৩টায় দরবারে গাউছিয়া আহমদীয়া মঞ্জিলের শাজ্জাদানশীন ও আনজুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউছে মাইজভাণ্ডারী কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি আলহাজ্ব শাহসুফি ডা. সৈয়দ দিদারুল হক মাইজভাণ্ডারী (মজিআ) মাজার শরীফে গোসল ও গিলাফ চড়ানোর মাধ্যমে ওরশের আনুষ্ঠানিক সূচনা করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন নায়েবে সাজ্জাদানশীন আলহাজ্ব শাহসুফি সৈয়দ সহিদুল হক মাইজভাণ্ডারী (মজিআ), শাহজাদা সৈয়দ আহমদ হোসাইন শাহরিয়ার, মাইজভাণ্ডার গাউছিয়া হক মঞ্জিলের সাজ্জাদানশীন সৈয়দ মোহাম্মদ হাসান (মজিআ), শাহজাদা সৈয়দ সাজ্জাদ হোসাইন সোহেল, শাহজাদা সৈয়দ নুরুল ইসলাম রুবাব, শাহজাদা সৈয়দ আহমদ মাঈন হোসাইন, সৈয়দ আহমদ নাবিদ হাসান, সৈয়দ হোসাইন সাইফ নিহাদুল ইসলাম, আনজুমানে মোত্তাবেয়ীনে গাউছে মাইজভাণ্ডারী কেন্দ্রীয় কমিটির মহাসচিব এস এম জাকারিয়া, সৈয়দ মাহমুদুল হক, নুরুল আলম চৌধুরী, সাবেক চেয়ারম্যান কাজী জানে আলম বাবুল, আকরাম হোসেন সবুজ, মাওলানা নুরুল আবছার শরীফ, মাওলানা আলাউদ্দিন হোসাইনী, কাজী জাহাঙ্গীর হাফিজ, জাহেদ হোসাইন কাউছার প্রমুখ।

    ওরশ উপলক্ষে গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিল, দরবারে গাউছিয়া আহমদিয়া মঞ্জিল, গাউছিয়া হক মঞ্জিল, রহমানীয়া মঞ্জিল, মইনীয়া মঞ্জিল কোরআন খতম, খতমে গাউছিয়া, খতমে খাজেগান, মিলাদ মাহফিল, হালকায়ে জিকির, ছেমা মাহফিল, বিশেষ মোনাজাত ও সকল মাজারে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করেছে। গত রাত ১২টা ১ মিনিটে স্ব স্ব মঞ্জিলের সাজ্জাদানশীনদের আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে ওরশের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়।

    পটভূমি : সৈয়দ হামিদ উদ্দীন গৌড়ী ১৫৭৫ সালে ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম আগমন করে পটিয়া থানার কাঞ্চননগরে বসতি স্থাপন করেন। তারই বংশধর সৈয়দ আহমদ উল্লাহ (.) জন্মগ্রহণ করেন ১৮২৬ সালে। পিতা মাওলানা সৈয়দ মতিউল্লাহ। ১২৬০ হিজরিতে উচ্চ শিক্ষার্থে তিনি কলকাতা গমন করেন। ১২৬৮ হিজরিতে কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসায় কৃতিত্বের সাথে পাস করেন এবং হাদিস, তাফসির, ফেকাহ শাস্ত্রে বিশেষ পারদর্শিতা অর্জন করেন। ১২৬৯ হিজরিতে যশোর জেলায় কাজী (বিচারক) পদে যোগ দেন। ১২৭০ হিজরিতে পদত্যাগ করে কলকাতার মুন্সি বুআলী মাদ্রাসায় প্রধান মোদাররেস পদে যোগ দেন। তাঁর পীর গাউছুল আজম মহিউদ্দীন আবদুল কাদের জীলানীর (রহ.) বংশধর শেখ সৈয়দ আবু শাহমা মুহাম্মদ ছালেহ আল কাদেরী লাহোরী (রহ.) এর নির্দেশে ১৮৫৭ সালে নিজ গ্রাম মাইজভাণ্ডারে ফিরে আসেন। কিছুদিনের মধ্যেই তাঁর কামালিয়তের কথা চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। ৭৯ বছর বয়সে ১৯০৬ সালে বাংলা ১০ মাঘ সোমবার রাতে মহান এই সুফি সাধকের ইন্তেকাল হয়।

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here