যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হচ্ছেন ব্লুমবার্গ

    0
    14

    রাউজানটাইমস ২৪ ডেস্ক :-

    05004910যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে নিউ ইয়র্কের সাবেক মেয়র মাইকেল ব্লুমবার্গ স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারেন বলে এক প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে জানিয়েছে রয়টার্স। আগামী নভেম্বরের ওই নির্বাচনে ক্ষমতাসীন ডেমোক্রটিক পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের লড়াইয়ে এগিয়ে রয়েছেন সাবেক ফার্স্ট লেডি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারী ক্লিনটন। আর বিরোধী দল রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থীদের মধ্যে এগিয়ে রয়েছেন ব্যবসায়ী থেকে রাজনীতিক বনে যাওয়া বিলিওনিয়ার ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিলিওনিয়ার মাইকেল ব্লুমবার্গে এর আগে ২০০৮ সালের নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে পারেন বলে দীর্ঘ জল্পনাকল্পনা চলে। তবে ওই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে নিউ ইয়র্ক টাইমসকেই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা না করার কথা জানিয়েছিলেন তিনি।

    নিউ ইয়র্ক টাইমসের শনিবারের ওই প্রতিবেদনের বরাতে দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার প্রচার কাজের জন্য সহযোগীদের পরিকল্পনা তৈরি করতে বলেছেন ৭৩ বছর বয়সী ব্লুমবার্গ। এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে ব্লুমবার্গের কোনো প্রতিনিধির সঙ্গে তাৎক্ষণিকভাবে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। খবর বিডিনিউজের।

    তার বক্তব্য শুনেছেন এমন কয়েকজনের বরাত দিয়ে টাইমস জানায়, ব্লুমবার্গ বন্ধু ও সহযোগীদের জানিয়েছেন, ২০১৬ সালের নভেম্বরের নির্বাচনের প্রচারের জন্য নিজের অন্তত এক বিলিয়ন ডলার ব্যয় করতে চান নিউ ইয়র্কের সাবেক এই মেয়র। পত্রিকাটি বলছে, ব্লুমবার্গ চাইছেন মার্চের প্রথম দিকে নির্বাচনী লড়াই শুরু করতে। এর পেছনে গত ডিসেম্বরের এক জনমত জরিপে ভরসা রাখছেন তিনি; যাতে ডোনাল্ড ট্রাম্প ও হিলারি ক্লিনটনের তুলনায় তার জনপ্রিয়তার বিষয়টি উঠে আসে।

    টাইমস জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর জয়ী হওয়ার রেকর্ড নেই। তবে রিপাবলিকানরা ডোনাল্ড ট্রাম্প বা টেক্সাসের সিনেটর টেড ক্রুজ এবং ডেমোক্র্যাটরা ভারমন্টের সিনেটর বার্নি স্যান্ডার্সকে মনোনয়ন দিলে সে রেকর্ড গড়তে পারেন লিবারেল সোশাল দৃষ্টিভঙ্গিসম্পন্ন ও ওয়াল স্ট্রিটের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ব্লুমবার্গ। দলীয় রাজনীতির বাইরে স্বতন্ত্র অবস্থান তৈরি করতে চান ২০০২ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত নিউ ইয়র্কের মেয়রের দায়িত্ব পালনকারী মাইকেল ব্লুমবার্গ। ২০০৭ সালে তিনি রিপাবলিকান দল ছেড়ে স্বতন্ত্রভাবে কাজ করা শুরু করেন। এছাড়া গত কয়েক বছর যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্র আইন কঠোর করতে এবং অভিবাসন নীতিতে সংস্কার আনতে জাতীয়ভাবে প্রচার চালান ব্লুমবার্গ, যাতে ব্যয় হয় মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার।

     

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here