রাউজানে উৎসব বিহীন শান্তিপূর্ণ ভোট : নোয়াপাড়ায় নৌকার দিদারুল আলম বিপুল ভোটে এগিয়ে, বিনাজুরীতে সুকুমার, jKl`Vjrcsyvic‡

    0
    11

    এস.এম. ইউসুফ উদ্দিন :-

    Raozan Up Election pic-1
    বড় ধরনেরই কোন সহিংস ঘটনা ছাড়াই রাউজানে উৎসব বিহীন শান্তিপূর্ণভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন হলেও উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ভোট কেন্দ্র গুলোতে ভোটার উপস্থিতি ছিল একেবারে নগন্য। তবে কিছু কিছু ভোট কেন্দ্রে নানা ধরনের অপ্রিতিকর ঘটনা ঘটেছে বলে জানাগেছে। এছাড়াও অনেক ইউপি সদস্য প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, কেন্দ্র দখল, জাল ভোট প্রদান, ভোটারদের কেন্দ্রে যেতে বাধা দেয়াসহ নানা অনিয়ম হয়েছে এ নির্বাচনে। এদিকে দুটি ইউনিয়ন কদলপুরে আওয়ামলীলীগের এক প্রার্থী ও নোয়াপাড়ায় বিএনপির এক চেয়ারম্যান প্রার্থী ভোটের আগে ভোট বর্জনের ঘোষনা দিয়ে নির্বাচন থেকে সরে দাড়িয়েছেন। তাই এসব কেন্দ্রে তাদের কোন এজেন্ট বা সর্মথকদের দেখা যায়নি। নোয়াপাড়ায় আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী নৌকা প্রতীক নিয়ে ষোল হাজারের বেশী ভোট পেয়ে তিনবারের হেট্রিক চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আলহাজ্ব দিদারুল আলম । বিনাজুরীতে আওয়ামীলীগের দলীয় প্রার্থী নৌকা প্রতীক নিয়ে সুকুমার বড়ুয়া চেয়ারম্যান এগিয়ে আছেন বলে জানাগেছে। সকাল থেকে এ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিদর্শন করে দেখা গেছে, অধিকাংশ কেন্দ্রই ছিল ভোটার শুণ্য। ভোটারদের ভোটদানে আগ্রহ ছিল কম। যার কারনে অনেকটাই নিরুত্তাপ উ’সববিহীনভাবে হয়ে গেল নির্বাচন।
    সকাল ১০টার দিকে নোয়াপাড়া ইউনিয়নের সামমাহালদার পাড়া ভোট কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায়। এখানে আগেই প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী না থাকায় বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় ইউপি সদস্য নির্বাতি হয়ে যায়। তাই এখানে ভোট চলছে শুধু চেয়ারম্যান পদে। এ কেন্দ্রে মোট ভোটার ২২৬৪। ভোট সংগ্রহ হয়েছে ৫০ শতাংশ। বেলা ১১টার দিকে নোয়াপাড়া শেখ পাড়া প্রাইমারী স্কুলে গিয়ে দেখা যায়, উৎসব মুখর পরিবেশে র্দীঘ লাইনে পুরুষ মহিলারা আলাদা লাইনে দাড়িয়ে তারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করছেন।
    অপরদিকে বেলা ২টার দিকে উরকিরচর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের আবুরখীল এলাকায় সদস্য প্রার্থী রতন ধর নামে এক ইউপি সদস্য প্রার্থীর উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। তার প্রতিপ সদস্য প্রার্থীর অমিত বড়–য়া জুনুর লোকজন আবুরখীল অমিতাভ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে জালভোট প্রদানের সময় বাধা দিলে তার সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এ সময় প্রতিপ প্রার্থীর লোকজনের হামলায় তিনি আহত হন। তিনি এ সম্পর্কে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন বলে আমাদের রাউজান প্রতিনিধি এস.এম. ইউসুফ উদ্দিনকে জানান। বেলা ১১টার দিকে পাহাড়তলী ইউনিয়নের ২নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী সুজন মল্লিক অভিযোগ করেন, তাঁর ভোটারদের ঊণসত্তর পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে যেতে বাঁধা দেয়ার পাশাপাশি সমর্থকদের হুমিক-ধমকি দিয়ে এলাকা ছাড়া করেছে। পরে দুপুর ২টায় তিনি ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। এ কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার দীপক কুমার মহুরী বলেন, জাল ভোটের অভিযোগ পেলেও এর সত্যতা পাওয়া যায়নি। এ কেন্দ্রের ১ হাজার ৮১৩ ভোটের মধ্যে এ সময় ৯শ‘ ভোট সংগ্রহ হয় বলে তিনি জানান।
    কদলপুর মীর বাড়ি ফোরকানিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রেও জাল ভোট প্রদানের অভিযোগ তুলেছেন সদস্য প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা হাসেম চৌধুরী। তিনি অভিযোগ করে বলেন, তার ১ নম্বর ওয়ার্ডের ওই কেন্দ্রে অপর সদস্য প্রার্থী মুরাদুল হক চৌধুরীর নিয়োজিত পোলিং এজেন্ট জাল ভোট দেয়ার চেষ্টা চালানোর সময় হাতে নাতে প্রিসাইডিং অফিসারের কাছে তুলে দিই।
    উপজেলায় ১৪ ইউনিয়নের মধ্যে ১১টিতে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বীতায় চেয়ারম্যানরা নির্বাচিত হন। একই ভাবে সংরতি মহিলা সদস্য ও পুরুষ সদস্যদের মধ্যে ১২২ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হন।
    দুপুর ১টায় বিনাজুরি ইউনিয়নের লেলেংগারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা গেছে, এ কেন্দ্রে লাইনে এবং ৪টি বুথেও ভোটার দেখা যায়নি। বেলা ১২টা ৪৫ মিনিটে রাউজান পরীর দিঘী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দেখা যায় এখানেও ভোটার শুন্য। কিছণ পর পর একজন করে ভোটার এসে ভোট প্রাদন করছে। এ কেন্দ্র ১ হাজার ৯৩২ ভোটের মধ্যে ওই সময়ে ৭৫০ ভোট কাস্ট হয় বলে কেন্দ্রে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার তৌহিদুল আনোয়ার এ তথ্য জানান। বেলা ২টা ৫০ মিটিটে পশ্চিম গুজরা ইউনিয়নের ইসলামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে দেখা যায় ভোটার বিহীন কেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ও প্রার্থীর পোলিং এজেন্টগন অলস সময় পার করছে। এ কেন্দ্রে দায়িত্বরত প্রিজাইডিং অফিসার দিনেশ দেওয়ান বলেন, ভোটারের উপস্থিতি অনেকটাই কম। ওই সময়ে ২ হাজার ২৩ ভোটের মধ্যে ৬টি বুথে ভোট কাস্ট হয়েছে ১ হাজার ২শ‘ ভোট।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here