রনির মুক্তিতে সহায়তা দেবো : জেলা প্রশাসক

    0
    5

    ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগে দ-িত নগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনিকে ‘ভাল ও আদর্শবান নেতা’ হিসেবে অভিহিত করেছেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ। একইসঙ্গে তার গ্রেপ্তার ও দ-িত হওয়া দুঃখজনক বলেও মন্তব্য করে তাকে আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্ত করতে সহযোগিতার কথা বলেছেন জেলা প্রশাসক। গতকাল রবিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ের নিচে রনির মুক্তির দাবিতে ছাত্রলীগের অবস্থান ধর্মঘটে এসে জেলা প্রশাসক এসব কথা বলেন।-বাংলানিউজ
    জেলা প্রশাসক বলেন, আমি দুই বছর ধরে চট্টগ্রামে আছি। আমি ব্যক্তিগতভাবে রনিকে চিনি। সে একজন ভাল আদর্শবান নেতা। সে ভাল, সুস্থ রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে। রনির গ্রেপ্তার হওয়া এবং দ-িত হওয়া দুঃখজনক। ‘ঘটনার সময় আমি নিজেও হাটহাজারীতে ছিলাম। যা-ই হোক, আইনি প্রক্রিয়ায় একটা ঘটনা ঘটেছে এখন আইনি প্রক্রিয়াতেই তাকে মুক্ত করতে হবে। এক্ষেত্রে সরকারের পক্ষ থেকে তাকে আইনি প্রক্রিয়ায় মুক্ত করতে আমি সহযোগিতা করব।’ বলেন জেলা প্রশাসক। তিনি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদেরও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে নূরুল আজিম রনির মুক্তির ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করেন।
    রবিবার দুপুর ১টার দিকে মিছিল নিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা আদালত প্রাঙ্গণে যান। মিছিল নিয়ে তারা আদালত ভবন, জেলা প্রশাসক ও বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয় প্রদক্ষিণ করে। এসময় রনিকে মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন স্লোগানে স্লোাগানে মুখরিত হয়ে উঠে পুরো এলাকা। এরপর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সামনে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নিচে প্রতিবাদ সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। এরপর সেখানে অবস্থান ধর্মঘট শুরু করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। দুপুর ২টার দিকে কার্যালয় থেকে নিচে নেমে আসেন জেলা প্রশাসক। এসময় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাকে ঘিরে ধরে স্লোগান দিতে থাকেন। পরে জেলা প্রশাসক ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখেন। এরপর ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা সেখান থেকে সরে যান।
    গত শনিবার দুপুরে হাটহাজারী উপজেলার মির্জাপুর থেকে নির্বাচনে দায়িত্বরত জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হারুনুর রশিদের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে রনিসহ নয়জনকে আটক করে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এ সময় রনির কাছে একটি নাইন এমএম পিস্তল, ১৫ রাউন্ড গুলি ও ২৬ হাজার টাকা পাওয়া যায়। এরপর তাদের হাটহাজারী থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।
    পরে ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত রনিকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা ২০১৬ এর দুটি ধারায় একবছর করে মোট দুই বছর কারাদ- দেন। গতকাল রবিবার সকালে রনিকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া রনির বিরুদ্ধে হাটহাজারী থানায় অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের হয়েছে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here