জঙ্গীবাদ নিমূলে পুলিশ বাহিনীর সাথে ’৭১ এর মত গর্জে উঠুন : পুলিশ কমিশনার ইকবাল বাহার

    0
    7

    রাউজানটাইমস ডেস্ক :- বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডের উদ্যোগে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ কমিশনার মোঃ ইকবাল বাহার পিপিএম এর সাথে আজ ১৭ আগস্ট এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মহানগর ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফ্ফর আহমেদের সভাপতিত্বে এবং ডেপুটি কমান্ডার শহীদুল হক চৌধুরী ছৈয়দের পরিচালনায় সভায় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডের প্রতিষ্ঠাতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জাহাঙ্গীর চৌধুরী সি.এম.সি (স্পেশাল), অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপারেশন ও ক্রাইম) দেবদাস ভট্টাচার্য, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মাসুদুর হাসান, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) ফারুক আহমেদ, উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি বন্দর পশ্চিম) মোঃ মারুফ হোসেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (নগর বিশেষ শাখা) মোঃ মোখলেছুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়া চক্রের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জাকির হোসেন মিজান, সহকারী Muktijudda Songsod News-17-8-2016কমান্ডার সাধন চন্দ্র বিশ্বাস, সহকারী কমান্ডার খোরশেদ আলম, প্রাতিষ্ঠানিক কমান্ডের আহবায়ক ফজল আহমদ, থানা কমান্ডের পক্ষ থেকে নুর উদ্দিন চৌধুরী, চ্যানেল আই এর ব্যুারো প্রধান চৌধুরী ফরিদ, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা সরওয়ার আলম চৌধুরী মণি, মহানগর কমান্ডের যুগ্ম আহবায়ক ও চবি’র শিক্ষক মোঃ ওমর ফারুক রাসেল। সভার শুরুতে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যসহ সকল শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। পুলিশ কমিশনার মোঃ ইকবাল বাহার পি.পি.এমকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগরের পক্ষ হতে ফুলেল শুভেচ্ছা ও সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধারা হলি আর্টিজনে জঙ্গী হামলায় নিহত পুলিশ সদস্যদেরকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে বলেন, দেশ গঠনে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ নিমুলে পুলিশ বাহিনী যেভাবে ভূমিকা রাখছে তাতে অচীরেই সকল দেশি বিদেশী ষড়যন্ত্র নসাৎ হবে। বক্তারা বলেন, ’৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে যেভাবে আমরা জীবন বাজি রেখে রক্ত দিয়ে এদেশকে স্বাধীন করেছি প্রতিক্রিয়াশীলদের কাছ থেকে ঠিক তেমনি ভাবে আমরা বেঁচে থাকতে জঙ্গিবাদের উত্থান এই বাংলার মাটিতে হতে দেবনা। পাশাপাশি আমাদের কোন সন্তানকে ধর্মের অপব্যাখ্যার মাধ্যমে জঙ্গি বানানোর অপচেষ্টা হতে দেবনা। মহানগর নেতৃবৃন্দ পুলিশ কমিশনার এর কাছে বিভিন্ন থানা ইউনিটে বসবাসরত মুক্তিযোদ্ধাদের যে কোন সমস্যা সমাধানে পুলিশ বাহিনীর সহায়তা কামনা করেন। পুলিশ কমিশনার বলেন, জাতির জনকের কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ যখন মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হচ্ছে, অর্থনৈতিক সুচকগুলো যখন বৃদ্ধি পাচ্ছে ঠিক তখনই কিছু প্রতিক্রিয়াশীল গোষ্ঠী যারা কখনো এই দেশের স্বাধীনতা মেনে নিতে পারেনি তরাই দেশকে পিছিয়ে দিতে বর্তমান সরকারের উন্নয়নকে বাঁধাগ্রস্থ করতে একের পর এক যড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। কিন্তু বর্তমান সরকার সকল ষড়যন্ত্র অতীতে যেভাবে নস্যাৎ করেছে ভবিষ্যতেও প্রতিহত করতে সক্ষম হবে। তিনি বলেন জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে জড়িত মাত্র কয়েকজন এদের বিরুদ্ধে সবাই যদি ঐক্যবদ্ধ ভাবে রুখে দাড়াই তাহলে ভবিষতে এই ধরনের ঘৃন্য কাজ করতে পারবেনা। তিনি সকল মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদেরকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে জঙ্গীবাদ ও সকল ষড়যন্ত্র নিমূলে এগিয়ে আসার আহবান জানান। পরিশেষে তিনি সকল মুক্তিযোদ্ধাদের সমস্যার কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন এবং মহানগরে অবস্থিত প্রত্যেক থানায় মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান ও সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন। অন্যানদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, এফ.এফ. হাজী আকবর খান, গোলাম রহমান, রফিকুল ইসলাম, হাজী জাফর আহমদ, অধ্যক্ষ হাজী শামসুদ্দিন আহমদ, দোস্ত মোহাম্মদ, এমরান গাজী, আহম্মদ মিয়া, সৈয়্যদ আহমদ, কামরুল আলম, সৌরীন্দ্র নাথ সেন, হাজী ইউনুচ, সৈয়দ আব্দুল গণি,  শামসুল হক, এম.এ মন্নান খান, আলহাজ্ব আলী হোসেন, সেলিম উল্লাহ, নুর উদ্দিন চৌধুরী প্রমুখ।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here