রাউজানে হচ্ছে বিসিক শিল্প নগরী : হাজার হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ

    0
    33

    এস.এম. ইউসুফ উদ্দিন :-

    raozan-map-copy
    রাউজান উপজেলায় একটি শিল্প নগরী হচ্ছে। প্রস্তাবিত এই শিল্পনগরী স্থাপনে ব্যয় হবে প্রায় ৮০ কোটি টাকা। ১৮৪টি শিল্প প্লটে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প ইউনিট স্থাপিত হবে। গত মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদনের জন্য প্রকল্পটি উপস্থাপন করার করা হলে সেটি অনুমোদন পায়। এই শিল্প নগরীর অনুমোদন দেয়ার খবরটি ছড়িয়ে পড়লে উপজেলা জুড়ে মানুষের মাঝে আনন্দের উচ্ছ্বাস দেখা দেয়। এই প্রকল্প অনুমোদন দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে রাউজানবাসী। ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে এটি বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক)। প্রায় দুই যুগের বেশী সময়ের পর নতুন এ শিল্পনগরীতে মধ্যে ১০ শতাংশ ইউনিট নারী উদ্যোক্তাদের জন্য সংরক্ষণ করা হবে। শিল্প ইউনিটগুলোতে প্রায় সাড়ে সাত হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে, যা স্থানীয়ভাবে দারিদ্র্য হ্রাসে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। সম্ভাব্যতা যাচাই শেষে এ সংক্রান্ত একটি প্রল্প হাতে নিয়েছে শিল্প মন্ত্রণালয়।
    স্থানীয় সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী রাউজান উপজেলায় একটি বিসিক শিল্প পার্ক স্থাপনের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয়কে লিখিত অনুরোধ জানান। স্থানীয় সংসদ সদস্যের অনুরোধ ও স্থানীয় চাহিদার প্রেক্ষিতে শিল্পনগরী স্থাপনের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য শিল্প মন্ত্রণালয় বিসিকসহ সংশ্লিষ্ট সংস্থা কার্যালয়ের প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি সম্ভাবত্য যাচাই কমিটি গঠন করে। এই কমিটি রাউজান উপজেলা সদর হতে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের রাঙ্গামাটি অভিমুখে তিন কিলোমিটার দূরত্বে মহাসড়কের পূর্বপাশে ঢালারমুখ এলাকায় ৩৫ একর আয়তন বিশিষ্ট বিসিক শিল্পনগরী স্থাপনের সুপারিশ করে। এই সুপারিশ অনুযায়ী রাউজান এলাকায় একটি শিল্পনগরী স্থাপনে শিল্প মন্ত্রণালয় ‘বিসিক শিল্পনগরী রাউজান’ শীর্ষক প্রকল্পটি প্রনয়ন করেন। প্রকল্পের প্রধান প্রধান কার্যক্রমের আওতায় ৩৫ একর ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে। এর মধ্যে ৩০ লাখ ২২ হাজার ঘনমিটার ভূমির উন্নয়ন, ৩৭৫ বর্গমিটার প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ, ৪৬ বর্গমিটার পাম্প ড্রাইভার কোয়ার্টার নির্মাণ করা হবে। এছাড়াও অন্যান্য কার্যক্রমগুলো হচ্ছে ২০ হাজার ৪১৫ বর্গমিটার অভ্যন্তরিণ সড়ক নির্মাণ, ৭১ হাজার মিটার ড্রেন নির্মাণ, ৫ দশমিক ৩২ কিলোমিটার বৈদ্যুতিক লাইন নির্মাণ, ৬ হাজার ৪৫০ মিটার গ্র্যাস লাইন স্থাপন, ১টি ডিপ টিউবওয়েল স্থাপন, ২ দশমিক ৫ কিলোওয়াট সোলার প্যানেল, ২০ কালর্ভাট ক্রস ড্রেন, ১৮৪টি শিল্প স্থাপনের জন্য প্লট তৈরি।
    প্রকল্পটির ওপর ২০১৬ সালের ৩ এপ্রিল প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। পিইসি সভায় কতিপয় সিদ্ধান্ত পরিপালন সাপেক্ষে অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়। পিইসি সভার সুপারিশ অনুযায়ী উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্গঠিত করে ৭৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে সম্পূর্ণ সরকারী অর্থায়নে ২০১৬ সালের জুলাই হতে ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে বাস্তবায়নের প্রস্তাব করা হয়েছে।
    এ শিল্প ইউনিটসমূহে প্রায় ৭ হাজার ৫০০ লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে যা, দারিদ্র্য হ্রাসে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় পড়–য়া রাউজান পৌর সভার ৬নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আবিদ মাহমুদ বলেন, ‘এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে রাউজানের বেকারত্ব দূরীকরণের মাধ্যমে দারিদ্র্য হ্রাসে সহায়ক হবে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here