বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু এক ও অভিন্ন সত্তা

    0
    1
    নিজস্ব প্রতিবেদক/রাউজানটাইমস ২৪.কম
     বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের আলোচনা সভায় বক্তারা বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শুধু একজন ব্যক্তি নন, একটি প্রতিষ্ঠান। বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী নেতৃত্বের গুণে এদেশ স্বাধীন হয়েছে। বঙ্গবন্ধু না হলে বাংলাদেশের জন্ম হত কিনা প্রশ্নসাপেক্ষ। বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু অভিন্ন সত্তা। বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের উদ্যোগে গতকাল চট্টগ্রামসহ দেশব্যাপি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপিত হয়।

    মহানগর আওয়ামী লীগ : বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ম-লীর সদস্য সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধ পূর্ণতা পেয়েছিলো। ১৬ ডিসেম্বর দেশ হানাদার মুক্ত হলেও হাহাকার ছিল বঙ্গবন্ধু কখন মৃত্যুকূপ থেকে ফিরে আসবেন। তিনি এসেছিলেন এই দিনে, তার আগে নয়া দিল্লীতে আমাদের

    মুক্তিযুদ্ধের সহযোদ্ধা ইন্দিরা গান্ধীকে বলেছিলেন, আপনার সেনাবাহিনীকে ফিরিয়ে নিন। ইন্দিরা কথা রেখেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ১৯ মার্চ ভারতীয় সেনাবাহিনীকে ফিরিয়ে নিয়েছিলেন। বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু অভিন্ন সত্তা। তিনি গতকাল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, তিন হাজার বছরের ইতিহাসে বাঙালি কখনো স্বাধীন ছিল না। ৭১ সালে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনায় বাঙালি জাতিসত্তার আবির্ভাব হয়। সভাপতির ভাষণে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসটি মহা আনন্দের, তবে এই দেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত করার জন্য আমাদের লড়াই অব্যাহত রাখতে হবে। তিনি আরো বলেন, সুশৃঙ্খল কর্মী বাহিনী আমাদের প্রধান শক্তি। বিশৃঙ্খলকারীরা জামাত-শিবিরের প্রতিভূ। তাদেরকে চিহ্নিত করে হটিয়ে দিতে হবে। মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন, সহ সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, আলতাফ হোসেন চৌধুরী বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম এ রশিদ, কোষাধ্যক্ষ সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, আইন সম্পাদক এডভোকেট ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, থানা আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর চৌধুরী সিইনসি স্পেশাল, মহানগর যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন খোকা, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা এডভোকেট মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা কায়সার মালিক, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা ইমরান আহমেদ ইমু ও নুরুল আজিম রনি। সমাবেশ মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট সুনীল কুমার সরকার, খোরশেদ আলম সুজন, এম জহিরুল আলম দোভাষ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলম, উপদেষ্টা এ কে এম বেলায়েত হোসেন, শেখ মাহমুদ ইসহাক, সম্পাদকম-লীর সদস্য নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, শফিকুল ইসলাম ফারুক, সৈয়দ হাসান মাহমুদ শমসের, আহমেদুর রহমান সিদ্দিকী,চন্দন ধর,মশিউর রহমান চৌধুরী, হাজী জহুর আহমেদ, মোহাম্মদ হোসেন, জোবাইদা নার্গিস খান, দেবাশীষ গুহ বুলবুল, আবদুল আহাদ, ইঞ্জিনিয়ার মানস রক্ষিত, আবু তাহের, উপ প্রচার সম্পাদক শহিদুল আলম, উপ দপ্তর সম্পাদক জহরলাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য এম এ জাকের, আবুল মনসুর, নুরুল আলম, গাজী শফিউল আজিম, শেখ শহীদুল আনোয়ার, বখতেয়ার উদ্দিন খান, অমল মিত্র, কামরুল হাসান বুলু, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, মহব্বত আলী খান, নুরুল আমিন শান্তি, বিজয় কিষাণ চৌধুরী, জাফর আলম চৌধুরী, মোহাম্মদ জাবেদ, মোর্শেদ আকতার চৌধুরী, থানা আওয়ামী লীগের আলহাজ্ব ফিরোজ আহমদ, আলহাজ্ব শাহাব উদ্দিন আহমেদ, আনসারুল হক, আলহাজ্ব ছিদ্দিক আলম, হারুনুর রশীদ, আবু তাহের, হাজী শফিকুল ইসলাম, হাজী সুলতান আহমেদ চৌধুরী, কাজী আলতাফ হোসেন, মাজাহারুল ইসলাম চৌধুরী, শফিউল আলম সগীর, অধ্যক্ষ আসলাম হোসেন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের হাজী আলী বক্স, আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন, আবুল বশর, ছালেহ আহমদ চৌধুরী, নুরুল আলম, আলহাজ্ব শের মোহাম্মদ, সলিম উল্লাহ বাচ্চু, আবুল হাসেম বাবুল, মোরশেদ আলম, শামসুল আলম, আশরাফুল আলম, কাজী রাশেদ আলী জাহাঙ্গীর, আবদুর রহিম, হাসান মুরাদ, হাজী মোহাম্মদ হাছাস, নুরুল আজিম নুরু, আবদুল্লাহ আল ইব্রাহিম, জহুরুল আলম জসিম, এরশাদ মামুন, জহির আহমেদ চৌধুরী, সালাহ উদ্দিন ইবনে আহমেদ, আবদুর রহমান, রফিকুল হোসেন বাচ্চু, আফছার উদ্দিন চৌধুরী, আশফাক আহমেদ, ফজলে আজিম বাবুল, আবদুল হান্নান, নুরুল আমিন কালু, শওকত আলী আবদুর রহমান, মোজাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, জামাল উদ্দিন, আবদুর শুক্কুর ফারুকী, আতিকুর রহমান, শেখ সোহরাওয়ার্দী, দলিলুর রহমান, আবদুল মালেক, সুলতান আহাম্মদ, আবদুল মান্নান, জয়নাল আবেদীন আজাদ, নূর মোহাম্মদ নুরু, এড. আইয়ুব খাঁন, নিজামউদ্দিন নিঝু, সাইফুদ্দিন খালেদ, জসিম উদ্দিন, নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মোহাম্মদ ইয়াকুব, হাজী ইউনুচ কোম্পানী, হাজী আবু তৈয়ব সিদ্দিকী, সৈয়দ মোহাম্মদ জাকারিয়া, মো. আবুল কাশেম, দিলদার খাঁন দিলু, সেলিম রেজা, শ্রমিক লীগের কাজী মাহবুবুল হক চৌধুরী এটলী, যুবলীগ নেতা মহিউদ্দিন বাচ্চু, ফরিদ মাহমুদ, দিদারুল আলম দিদার, মাহবুবুল হক সুমন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কে.বি.এম শাহজাহান, মোহাম্মদ সালাউদ্দিন প্রমুখ।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here