রাউজানে বিসিক শিল্পনগরী প্রকল্প বাস্তবায়নে কার্যক্রম

    0
    1
    জাহেদুল আলম | রাউজানটাইমস ২৪.কম
    একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদিত চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি সড়কের উত্তর পাশে রাউজান পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের ঢালারমুখ এলাকায় ৩৫ একর জায়গায় বিসিক শিল্প নগরী নির্মাণ প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ শিল্প নগরী স্থাপনে প্রস্তাবিত জায়গাটি চূড়ান্তভাবে অধিগ্রহণের জন্য গত মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে পরিদর্শনে আসেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণ বিভাগের কর্মকর্তারা।

    এ সময় তারা অধিগ্রহণের জন্য প্রস্তাবিত ভূমিটি ঘুরে দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন। শীঘ্রই চূড়ান্তাবে এর ভূমি অধিগ্রহণ করা হবে বলে তারা স্থানীয় সাংবাদিকদের জানান।

    জেলা ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা কামরুজ্জামানের নেতৃত্বাধীন পরিদর্শনকারী দলের সাথে ছিলেন রাউজান পৌরসভার ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ, প্রকল্প পরিচালক এটিএম হামিদুল হক চৌধুরী, প্রকল্পের সহকারী প্রকৌশলী আবদুল কাদের, জেলা প্রশাসনের এল.এ বিভাগের কানুনগো জামাল উদ্দিন, সার্ভেয়ার আবু তাহের, ইরফান আহমদ চৌধুরী, আজিজুল হক কোম্পানি, জসিম উদ্দিন, শোয়েব খান, ইউছুপ চৌধুরী, আরিফুল ইসলাম চৌধুরী, নাজমুল হক, মনিরুজ্জামান, রতন চন্দ্র বৈজ্ঞব, ফারুক হোসেন, জিএম জহির উদ্দিন, আবু তালেব প্রমুখ।
    এদিকে রাউজান পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের ঢালারমুখ এলাকায় বিসিক শিল্প নগরী নির্মাণ প্রকল্পের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ কার্যক্রম শুরু হওয়ায় এলাকার মানুষের মাঝে আনন্দ উচ্ছ্বাস লক্ষ্য করা গেছে। এলাকার লোকজন মনে করেন এখানে এ শিল্প নগরী প্রতিষ্ঠা হলে রাউজানের মানুষের আরো ভাগ্যোন্নয়ন হবে।
    স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর ২য় প্যানেল মেয়র জমির উদ্দিন পারভেজ বলেন ‘৩৫ একর ভূমিতে এ বিসিক শিল্প নগরী গড়ে উঠবে। এলাকার সাংসদ এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিল এ শিল্প নগর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যে সে প্রকল্প একনেক সভায় চূড়ান্তভাবে এটির অনুমোদন দিয়েছেন। প্রকল্পটি বাস্তবায়তনে সবধরণের সরকারি কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এটি বাস্তবায়ন হলে ৯নং নম্বর ওয়ার্ডসহ রাউজানের প্রায় ৫০ হাজার বেকার লোকের কর্মসংস্থান হবে।
    প্রসঙ্গত, প্রকল্পটির উপর ২০১৬ সালের ৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভায় কতিপয় সিদ্ধান্ত পরিপালন সাপেক্ষে অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়। পিইসি সভার সুপারিশ অনুযায়ী উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) পুনর্গঠিত করে ৭৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকার প্রাক্কলিত ব্যয়ে সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে ২০১৬ সালের জুলাই হতে ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের প্রস্তাব করা হয়। এ প্রেক্ষিতে প্রকল্পটি চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য একনেক সভায় উত্থাপন করা হলে সেখানে অনুমোদন লাভ করে। ২০১৯ সালের জুনের মধ্যে ৭৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকার এই প্রকল্পটি পুরোপুরি বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে। এ প্রকল্পের আওতায় ভূমির উন্নয়ন, প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ, পাম্প, ড্রাইভার, কোয়ার্টার নির্মাণ, অভ্যন্তরীণ সড়ক নির্মাণ, ড্রেন নির্মাণ, বৈদ্যুতিক লাইন নির্মাণ, গ্যাস লাইন স্থাপন, ডিপ টিউবঅয়েল স্থাপন, সোলার প্যানেল, কালভার্ট ক্রস ড্রেন ১৮৪টি ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প স্থাপনের জন্য প্ল­ট তৈরি।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here