রাউজানে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে নতুন করে প্লাবন

    0
    3

    জাহেদুল আলম । রাউজানটাইমস ২৪.কম

    মাত্র ১৫–২০ মিনিটের মুষলধারে বৃষ্টি, আর পাহাড়ি ঢলে আবারো প্লাবিত হয়ে পড়লো রাউজানের হলদিয়া, চিকদাইর ও ডাবুয়া ইউনিয়নের বহু গ্রাম। সাম্প্রতিক বন্যায় সর্ত্তা, ডাবুয়া খালের ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধের একাধিক পয়েন্ট দিয়ে রবিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে আবারো পানি ঢুকে পড়ে। এতে তিন ইউনিয়নের কমপক্ষে দেড় হাজার বসতঘর প্লাবিত হয়। সরেজমিনে দেখা যায়, এয়াছিন নগরে সর্তা খালের তিনটি ভাঙ্গা পয়েন্ট দিয়ে হলদিয়া ভিলেজ সড়ক মুহূর্তের মধ্যেই প্লাবিত হয়ে পড়ে। এতে তীব্রস্রোতে এই সড়ক দিয়ে পানি গড়িয়ে পড়তে দেখা যায়। তীব্র স্রোতের মধ্যে এ সড়ক দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে নবনির্মিত হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ। সাম্প্রতিক বন্যায় এ ইউনিয়ন পরিষদের প্রাচীর ভেঙ্গে যায়। রবিবার আবার ইউনিয়ন পরিষদটি প্লাবিত হয়ে নিচ থেকে মাটি সরে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়েছে বিভিন্ন অবকাঠামো। হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল ইসলাম বলেন ‘রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার অল্প বৃষ্টির পর পাহাড় থেকে সর্তাখাল দিয়ে নেমে আসা ঢলে পূর্বে ভেঙে যাওয়া এয়াছিন নগরে তিনটি ও মোট ১৪টি পয়েন্ট দিয়ে আবারও পানি নি¤œাঞ্চলে ঢুকে পড়ে। এতে এয়াছিন নগর, উত্তর সর্ত্তা, হলদিয়াসহ বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ৫শ পরিবারের বসতঘরে পানি ঢুকে পড়ে। গতকালের বন্যায় হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ একেবারেই ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে উপনীত হয়েছে। অথচ এ পরিষদটি নির্মাণ করা হয়েছে মাত্র এক বছর আগে। চেয়ারম্যান জানান, ১৮ জুন আবারও ২০–৩০ পুকুর ডুবে যায়। চিকদাইর ইউপি চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরী বলেন, আমি রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে বসা ছিলাম। হঠাৎ সর্ত্তাখালে মাত্রারিক্ত পানি বেড়ে যায়। মুহূর্তেই পাঠানপাড়া, ৫, ৯ ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন গ্রামের বাড়িঘর প্লাবিত হয়ে পড়ে। সর্ত্তাখালে ভাঙ্গা পয়েন্টগুলো দিয়ে পানি ঢুকে ইউনিয়নের কমপক্ষে ৫–৭শ পরিবার পানিবন্দী হয়ে পড়ে। ডাবুয়ার বাসিন্দা মোরশেদুল আলম জানান, ডাবুয়া ইউনিয়নের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া সর্ত্তা ও ডাবুয়া খালের পানির স্রোতে বিভিন্নস্থানে ভেঙ্গে যায় তীর। এতে নি¤œাঞ্চলে পানি ঢুকে পড়ে রবিবারও। এতে পশ্চিম ডাবুয়া, আজমের বাড়ি, খাদা গাজীর বাড়ি, সেন বাড়ি, গণিপাড়া, বারৈপাড়াসহ বিভিন্ন বাড়ির ৫ শতাধিক বসতঘরে বন্যার পানিতে তলিয়ে যায়।
    তিন এলাকার জনসাধারণ জানান, রবিবার ভোর থেকে সামান্য বৃষ্টি হয়েছে রাউজানে। তবে সকালে অঝোধারায় ১৫–২০ মিনিট বৃষ্টি হয়। সে বৃষ্টিতে আবারও তলিয়ে যায় হলদিয়া, ডাবুয়া, চিকদাইর ইউনিয়ন। পাহাড়ি ঢল, অতিরিক্ত বৃষ্টি এবং সর্ত্তা, ডাবুয়া খালের বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়া এসব এলাকার মানুষ পানিতে কষ্ট পাচ্ছে। এবার এসব ইউনিয়নের হাজার হাজার বসতিদের জন্য একমাত্র দুঃখের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে সর্ত্তা আর ডাবুয়া খাল। স্রোতস্বিনী এসব খালের তীব্রস্রোতে ভেঙ্গে যাচ্ছে বেড়িবাঁধ। পানি ঢুকে পড়ছে বাড়িঘরে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here