ইউএনও’র নখ দর্পনে রাউজান উপজেলা সদর

    0
    1

    গাজী জয়নাল আবেদীন :
    উপজেলার সকল প্রশাসনিক কার্যালয়, ডাকবাংলো, অডিটোরিয়াম, বাজার, সড়কের মোড়, রাস্তার মুখ, মার্কেটের সম্মুখসহ গুরুত্বপূর্ণ চল্লিশটি স্থানে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। এইসব ক্যামেরার মাধ্যমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিজ কার্যালয়ে বসে উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে সরাসরি চোখ রাখছেন। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা চোখে পড়লে ইউএনও সরাসরি ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে সমস্যা সমাধান করছেন। এভাবে উপজেলা সদরের প্রায় পুরোটাই এখন বলতে গেলে নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেওয়া হয়েছে।
    উপজেলা প্রশাসন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলা সদরের সকল প্রশাসনিক ভবনের ফটক, উপজেলা সদরে সংযুক্ত প্রতিটি সড়কের প্রবেশমুখ, বাজারের প্রবেশমুখ, থানার ফটকসহ নানা জনগুরুত্বপূর্ণ স্পটে গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে ৪০টি সিসি ক্যামেরা স্থাপন করে নজরদারি করা হচ্ছে। গত ছয় মাস পর্যন্ত এইসব ক্যামেরা সংস্থাপন ও রক্ষণাবেক্ষণ বাবদ প্রায় পাঁচ লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। এর সকল ব্যয় উপজেলা পরিষদ প্রশাসন থেকে বহন করা হচ্ছে। রাউজান উপজেলাকে একটি কার্যকরী, সুশৃঙ্খল ও নিরাপদ উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর পরামর্শ ও সহযোগিতায় এই উদ্যোগ নেন ইউএনও শামীম হোসেন রেজা।
    সিসি ক্যামরা স্থাপনের উদ্দেশ্য সম্পর্কে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম হোসেন রেজা বলেন, পৌরসভার প্রধান প্রধান অংশে যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা, যানজট, চুরি, ছিনতাই, মারামারি বা কোনো স্থান অপরিচ্ছন্ন রয়েছে কিনা এসব বিষয় দেখা হয়। তাছাড়া জঙ্গি হামলা রোধের প্রস্তুতি, অফিসের নিরাপত্তা বিধান করতেও বেশ কাজে লাগছে এই মনিটরিং। সেবা প্রার্থীরা এসে তার মোটরগাড়ি নিশ্চিন্তে রেখে সেবা নিতে পারছে। পর্যায়ক্রমে সিসি ক্যামেরার আওতা আরো বাড়ানো হবে। এই সিসি ক্যামেরার সুফলের একটি উদাহরণ দিতে গিয়ে তিনি জানান, সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে আমরা একটি ছিনতাইয়ের ঘটনায় ছিনতাইয়ে ব্যবহূত গাড়ির নম্বর বের করেছি। উপজেলা সদর থেকে ছিনতাই পাঁচ লক্ষ টাকার মধ্যে সাড়ে তিনলক্ষ টাকাসহ ছিনতাইকারীকে পরে কক্সবাজার থেকে গ্রেফতার করা হয়।
    উপজেলা সদরের একটি ভাতের হোটেলের মালিক জমির উদ্দিন বলেন, সিসি ক্যামেরার কারণে আমরা নিরাপদে চলাচল করতে পারছি। তাছাড়া, সড়কে যত্রতত্র গাড়ি পার্কিং রোধে অনেকসময় ইউএনও নিজেই চলে এসে তদারকি করছেন। আবার কখনও লোক পাঠিয়ে গাড়ি সরানোর ব্যবস্থা করেন। এমনকি, রাস্তায় বখাটেদের উত্পাতও অনেক কমে এসেছে এসব সিসি ক্যামেরার কারণে।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here