কেড়ে নেওয়া হচ্ছে অং সান সু চি’র বৃটিশ সন্মাননা

    0
    4

    আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
    ডময়ানমারের রাখাইনে সাম্প্রতিক রোহিঙ্গা নির্যাতনের বিরুদ্ধে নীরব ভূমিকা পালনের কারণে বিশ্বজুড়ে নিন্দিত হয়েছেন মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো সরকারের রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি। তারই জের ধরে সূচিকে দেওয়া বিভিন্ন সন্মাননা কেড়ে নিচ্ছে ব্রিটিশ সংস্থা ও সংগঠনগুলো। প্রভাবশালী দৈনিক দ্যা গার্ডিয়ানে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে এসেছে।

    দ্য গার্ডিয়ান জানিয়েছে, মিয়ানমারে সামরিক জান্তাদের বিরুদ্ধে গণতন্ত্রের জন্য আন্দোলনের সময় সু চিকে সদস্যপদ দেয় ব্রিটেনের স্বনামধন্য ট্রেড ইউনিয়ন ইউনিসন। সেই সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে। ইউনিসন সভাপতি মার্গারেট ম্যাককি বলেন, মিয়ানমারের রোহিঙ্গারা যে পরিস্থিতিতে তা অবর্ণনীয়। সু চির সম্মাননামূলক সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে। আমরা আশাকরি এতে তার ওপর চাপ সৃষ্টি হবে।
    সরকারবিরোধী থাকা অবস্থায় সু চি কে সম্মানসূচক ডিগ্রি প্রদান করেছিল যুক্তরাজ্যের ব্রিস্টল ইউনিভার্সিটি। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রোহিঙ্গাদের নিধনযজ্ঞের কারণে কর্তৃপক্ষ ডিগ্রিটি পুনর্বিবেচনা করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র বলেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে কর্তৃপক্ষ উদ্বিগ্ন। ১৯৯৮ সালে আমরা সু চিকে সম্মানসূচক ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করেছিলাম। তখন তিনি মিয়ানমারের মানবাধিকার ও গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রাম করছিলেন। এখন পরিস্থিতি পাল্টে যাওয়ায় ডিগ্রিটি পুনর্বিবেচনা করা হচ্ছে।’
    লন্ডন স্কুল অব ইকোনমিক্স স্টুডেন্ট ইউনিয়ন জানিয়েছে, তাদের সংগঠনে সু চিকে সম্মানসূচক যে সভাপতির পদ দেওয়া হয়েছিল তা প্রত্যাহার করা হবে।সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মাহাতির পাশা বলেন, ‘গণহত্যা পরিস্থিতিতে সু চির অবস্থানের কারণে আমরা সু চির সভাপতির পদ প্রত্যাহার করব।’
    ১৯৯৭ সালে সু চিকে সম্মাননা দিয়েছিল অক্সফোর্ড কাউন্সিল। কাউন্সিলররা ঘোষণা দিয়েছেন, তারাও সু চিকে দেওয়া খেতাব প্রত্যাহারের বিষয়টি পরবর্তী কাউন্সিল বৈঠকে আলোচনা করবেন।

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here